⭆যৌন ও স্ত্রীরোগের স্থায়ী, আধুনিক ও সফল হোমিওপ্যাথিক চিকিত্সা⭅
পুরুষদের যৌন দুর্বলতা, দ্রুত বীর্যপাত, পুরুষত্বহীনতা, ধ্বজভঙ্গ, অতিরিক্ত স্বপ্নদোষ, স্পারম্যাটোরিয়া, হস্তমৈথুন অভ্যাস ও এর কুফল, লিঙ্গের অসারতা, সিফিলিস, গনোরিয়া ইত্যাদি, নারীদের জরায়ু সংক্রান্ত ব্যাধি, স্তন টিউমার/ক্যান্সার, বন্ধ্যাত্ব ও অন্যান্য স্ত্রীরোগসমূহের আধুনিক ও সফল হোমিওপ্যাথি চিকিত্সা।
যোগাযোগ: ডাক্তার আবুল হাসান; ডি. এইচ. এম. এস (বি. এইচ. এম. সি), ১০৬ দক্ষিন যাত্রাবাড়ী, শহীদ ফারুক রোড, ঢাকা ১২০৪,
ফোন : ০১৭২৭-৩৮২৬৭১, ০১৯২২-৪৩৭৪৩৫

যৌন উত্তেজনা বৃদ্ধির সফল টিপস

আপনিও লাইক দিন !

প্রতিদিন একইভাবে যৌন মিলনেও অনেক সময় যৌন মিলনেও অনেক সময় যৌন উত্তেজনা হ্রাসের ব্যাপারে ভূমিকা রাখতে পারে। এখানে কয়েকটি টিপসের আলোচনা করা হবে যাতে করে উত্তেজনা বৃদ্ধিতে আপনি কিছুটা হলেও ফলপ্রসূ হন।
নারী উপরে :-
এই অবস্থায় পুরুষের লিঙ্গ নারীর যোনিতে ৪৫ ডিগ্রি এ্যাঙ্গেলে প্রবেশ করাবে নারী এবং নারী পুরুষের অনুত্থিত লিঙ্গকে হাত দিয়ে নাড়াচাড়া করে একে সুদৃঢ় করে তুলবে। সে তার স্তন, ভগাঙ্কুর এবং পশ্চাৎপ্রদেশের ব্যবহারে পুরুষকে উত্তেজিত করে তুলবে। এতে করেও যদি পুরুষাঙ্গ উত্থিত না হয় তবে একইভাবে পুনর্বার দেখা যেতে পারে।

পুরো শরীর :-
জিহ্বা এবং হাতের আঙ্গুল যৌন উত্তেজনা বাড়াতে পারে। নারীর যোনিমুখের পাতলা আবরণ এবং ক্লাইটোরিস বা ভগাঙ্কুর যদি পুরুষ তার জিহ্বা দিয়ে নাড়াচাড়া করে তবে নারীর অনুভূতি চূড়ান্ত পর্যায়ে পৌঁছে যায়। এছাড়াও ভালভাবে নখ ছেঁটে পুরুষ তার হাতের আঙ্গুল নারীর যোনিতে প্রবেশ করিয়েও তাকে তীব্র যৌনকাতর করে ফেলতে পারে। এতে করে নারীর উত্তেজনা পুরো শরীরে প্রবেশ করে এবং উত্তেজনার রেশ বাড়তে থাকে।

নারীর অধিগ্রহণ :-
পুরুষের মুখের কাছে নারী তার যৌনাঞ্চলগুলো স্পর্শ, ঘ্রাণ দিয়ে যাবে। অনেক সময় নারীর যৌন অঞ্চলের ঘ্রানে পুরুষের উত্তেজনা দ্বিগুণ হয়। এতে করে পুরুষ বেশি উত্তেজিত হয়ে উঠবে। একে নারীর অধিগ্রহণ বলা হয়।

জি-স্পট সেক্স :-
এতে করে নারী দু হাঁটু গেড়ে বসবে। পুরুষ তার লিঙ্গ প্রবেশ করাবে। নারীর সবচেয়ে যৌন অঞ্চল মানে হলো ভগাঙ্কুর। পুরুষের লিঙ্গ একবার এতে ছোঁয়ালেই নারীর যৌনানুভূতি প্রবল হয়। এতে করে পুরুষেরও যৌন অনুভতি দৃঘ হবার কথা। নারী পুরুসকে এই ভাবেও উত্তেজিত করতে পারে। যৌন বিজ্ঞানীরা একে জি-স্পট সেক্স বলে। কেননা এতে করে নারী ইংরেজী জি অক্ষরের মতো আসন নিয়ে বসে।

পৌনপুনিকতা :-
পুরুষ তার উত্তেজনা বাড়াতে নারীর যোনিমুখে তার লিঙ্গকে প্রবেশ করানোর পূর্বে নারীর নিচের দিককার অর্থাৎ ভগাঙ্কুর, যোনি ইত্যাদিতে হাতের স্পর্শ বা মুখের স্পর্শ ঘটাতে পারে। এতে করে পুরুষের যৌন উত্তেজনা বেড়ে যেতে পারে।

আধুনিক হট স্পট :-
যৌন বিজ্ঞান দেখেছে, নারীর পুরো শরীরই যৌন উত্তেজক। বিশেষ করে পেটের এবং তলপেটের নিচের দিকে ভগাঙ্কুরের মাঝামাঝি স্থানে নারী উত্তেজনা মারাত্মকভাবে লুকিয়ে থাকে। তবে বিভিন্ন নারীদের বিভিন্ন রকম হতে পারে। পুরুষদের তাদের নারীদের সাথে যৌন মিলনে যাবার সময় এটি বেছে নিতে হবে। এতে করে পুরুষদের উত্তেজনা চূড়ান্ত হবার আশঙ্কা থাকে।

মৌখিক তীব্রতা :-
সাধারণভাবে এটা ওরাল সেক্স। নারী পুরুষের লিঙ্গ, লিঙ্গদেশ এবং লিঙ্গমুন্ডের অগ্রভাগে চুমু দিয়ে, অথবা মুখের লালা দিয়ে ভিজিয়ে পুরুষকে চূড়ান্ত উত্তেজনা দিতে পারে। আবার নারী পুরুষের লিঙ্গকে মুখের ভেতর বার বার প্রবেশ এবং বের করতে পারে। এতে করেও পুরুষের উত্তেজনা আসবে এবং যৌন শীতলতা কমে যাবে।

মুখোমুখি :-
নারীকে শুয়ে পুরুষ কিংবা পুরুষকে শুইয়ে নারী পরস্পর পরস্পরের দিকে যৌনতার দৃষ্টিতে চেয়ে থাকলে নারী-পুরুষ উভয়ের উত্তেজনা বেড়ে যায়।

পুরুষের অন্ডকোষ :-
অনেক পুরুষ এই ব্যাপারটিতে অজ্ঞ। তাদের অন্ডকোষের মধ্যে সবচেয়ে গুরুত্বপূর্ণ কিছু যৌনতা লুকানো থাকে। নারী যখন পুরুষের অন্ডকোষে হাত দেয় কিংবা তাতে মৃদু চাপ সৃষ্টি করে, তখনও পুরুষ বিশেষ এক ধরনের আনন্দ পেতে পারে। পুরুষের অন্ডকোষ যৌনতা সৃষ্টি করতে পারে। নারীর মৃদু হাত বোলানোতেও এই উত্তেজনা দ্বিগুণ হয়।

ত্বকের উত্তেজনা :-
বহু পুরুষের যৌনাঞ্চলের ত্বকেই বিশেষ ধরনের উত্তেজনা থাকে। নারীর স্পর্শে সেটা বেড়ে যায়। যেমন-পুরুষের লিঙ্গের ত্বকে নারীর চুমু দেয়া কিংবা চুষে ফেলাতে পুরুষ যৌন উত্তেজনায় অস্থির হয়ে উঠতে পারে। এটি পুরুষের চরম উত্তেজনার প্রথম স্তর। নারী তাকে চূড়ান্ত উত্তেজনার জন্য তার লিঙ্গমুন্ডকে বার বার চুষতে পারে, এতে করে পুরুষের অবস্থা অধিক কাতর হয়ে উঠবে। তবে নারীকে লক্ষ্য রাখতে হবে, যেন তার দাঁত পুরুষের লিঙ্গে ক্ষতের সৃষ্টি না করে। কেন না চরম অবস্থায় উভয়েই বোধজ্ঞান কিছুটা হারিয়ে ফেলতে পারে।

বিশেষ সতর্কতা :-
অনেকেই রাস্তার পাশে দোকান থেকে অথবা ফুটপাথ থেকে নানা প্রকার হার্বাল, কবিরাজি এবং ভেষজ নামধারী ভেজাল ঔষধ খেয়ে থাকেন যৌন উত্তেজনা বাড়ানোর জন্য। কেউ বা বিজ্ঞাপনের ছটায় বিভ্রান্ত হয়ে, কেউ বা শখের বসে আবার কেউ বা লোভে পড়ে অধিক যৌনান্দ পেতে নিয়মিত এসব ক্ষতিকর ঔষধ ব্যবহার করে থাকেন। আজকাল ইন্টারনেট পর্যন্ত অশ্লীল ছবিসহ এইসকল ঔষধের বিজ্ঞাপনে ভরে গেছে (সতর্ক থাকবেন)। মনে রাখবেন, বেশ কিছু সময় যদি আপনি এইসকল উত্তেজক ঔষধগুলি চালিয়ে যান এক সময় আপনি যৌন ক্ষমতায় পুরুপরি অক্ষম হয়ে যাবেন। তখন ঐ অবস্থায় অন্য আর কোনো ঔষধই কাজ করতে চায় না। এটা আমার কথা হয়। দেশের বড় বড় যৌন বিশেষজ্ঞ ডাক্তারদের কথা। যারা দীর্ঘদিন যৌন রোগের চিকিত্সা দিয়ে আসছেন এবং এ নিয়ে গবেষণা করে আসছেন।

প্রতিটি পুরুষ তাদের যৌন শক্তি পেয়ে থাকে দৈনন্দিন খাবার দাবার থেকে। তাই নিয়মিত দুধ, ডিম, মধু এবং অন্যান্য পুষ্টিকর খাবার খেয়ে যায়, কখনো যৌন দুর্বলতায় ভুগবেন না। তার জন্য কোনো ঔষধ খাওয়ার দরকার নেই। আর যদি কোনো প্রকার যৌনরোগে আক্রান্ত হয়ে থাকেন তাহলে আপনার হোমিওপ্যাথের সাথে তাত্ক্ষণিক ভাবে যোগাযোগ করুন এবং চিকিত্সা নিন। দেখবেন অল্প কয়েক দিনের চিকিত্সাতেই আপনার সকল যৌন সমস্যাবলী চিরতরে নির্মূল হয়ে গেছে তার জন্য বার বার ঔষধ খাওয়ার প্রয়োজন নেই। ভালো থাকুন, সুস্থ থাকুন এবং আনন্দময় যৌন জীবন উপভোগ করুন। এটাই আমাদের কামনা। ধন্যবাদ।

No comments:
Write comments
Recommended Posts × +