যৌন ও স্ত্রীরোগ, চর্মরোগ, কিডনি রোগ, হেপাটাইটিস, লিভার ক্যান্সার, লিভার সিরোসিস, পাইলস, IBS, পুরাতন আমাশয়সহ সকল ক্রনিক রোগে হোমিও চিকিৎসা নিন। ডাঃ হাসান, আধুনিক হোমিওপ্যাথি, যাত্রাবাড়ী, ঢাকা। ফোন করুন:- ০১৭২৭-৩৮২৬৭১

মঙ্গলবার, ১২ নভেম্বর, ২০১৩

অবাধে চলছে ভুয়া চিকিৎসাবাণিজ্য

চিকিৎসার অপর নাম সেবা। আর সেবাই হচ্ছে ধর্ম। অথচ জীবনরক্ষাকারী এই সেবা নিয়ে প্রতারণার অন্ত নেই। স্বনামধন্য চিকিৎসক ও চিকিৎসা প্রতিষ্ঠানের বাইরে চিকিৎসার নামে যত্রতত্র ব্যাঙের ছাতার মতো গড়ে উঠছে শত শত ভুয়া প্রতিষ্ঠান। এসব প্রতিষ্ঠানকে ঘিরে সাইনবোর্ডসর্বস্ব হেকিম-ডাক্তারেরও অভাব নেই। সরকারিভাবে স্বীকৃত কোনো ডাক্তারি চিকিৎসা প্রতিষ্ঠান থেকে পাস করার সনদ না থাকলেও তারা বড় ডাক্তার কিংবা বিশ্বখ্যাত হেকিম বনে গেছেন। সব রোগেরই চিকিৎসা আছে তাদের কাছে। হোক যত জটিল কিংবা দুরারোগ্য ব্যাধি।
হারবাল আর কবিরাজি চিকিৎসার নামে মানবদেহের সব রোগই তারা গ্যারান্টি দিয়ে চিকিৎসা করছেন। এ চক্রের দেওয়া বিজ্ঞাপনের গোলকধাঁধায় পড়ে বিপদগ্রস্থ সাধারণ মানুষ থেকে শুরু করে সমাজসচেতন অনেক বিজ্ঞ-অভিজ্ঞ মানুষও প্রতিনিয়ত প্রতারিত হচ্ছেন। হারবাল ও আরকবিরাজি ওষুধের উপাদান পরীক্ষা করার পর্যাপ্ত উপকরণ নেই দেশে। সরকারের কর্তৃপক্ষ বলতে যা আছে তাও ম্যানেজ করা খুব সহজ। তাই তাদের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নেওয়ার কোনো উপায়ই নেই যেন। তবে তথ্যানুসন্ধানে জানা গেছে, আরকবিরাজি এবং হারবাল চিকিৎসা প্রতিষ্ঠানের সবই বিতর্কিত নয়। প্রথিতযশা কিছু চিকিৎসকের কারণে এ চিকিৎসা পদ্ধতির ওপর এখনও মানুষের আস্থা রয়েছে। কিন্তু এর সুযোগ নিচ্ছে প্রতারক চক্র।

আর কবিরাজি এবং হারবাল চিকিৎসায় অব্যবস্থাপনা ও খারাপ দিকগুলো জনস্বার্থে যাদের নিয়ন্ত্রণ করার কথা তারা তা করছেন না। উল্টো কেউ কেউ নানারকম সুবিধা নিয়ে অবৈধ কাজকে বৈধ করে দিচ্ছেন। সোজাসাপ্টাভাবে বললে, অনেকের বিরুদ্ধে মাসোহারা ভিত্তিতে ঘুষ নেওয়ার অভিযোগ করেছেন ভুক্তভোগীদের অনেকে। কেউ রাখঢাক না রেখে সরাসরি, কেউ আবার পরিচয় গোপন করার শর্তে দিয়েছেন ঘুষ-বাণিজ্যের নানা তথ্য।

বাজারজাত হওয়া অন্যান্য ওষুধের মতো আরকবিরাজি, হারবাল, ইউনানী ও আয়ুর্বেদ নামের ভেষজ (গাছ-গাছড়া, লতা-পাতা ও ফলমূল দিয়ে তৈরি) ওষুধেও ভেজাল! শুনতে বিস্ময়কর মনে হলেও এটাই সত্য। ভেষজ ওষুধের সুনামকে কাজে লাগিয়ে এক শ্রেণির নামধারী হেকিম, কবিরাজ ও চিকিৎসক দেদার ভেজাল ওষুধ তৈরি করছে। নানা সীমাবদ্ধতার কারণে ওষুধ প্রশাসন এ সেক্টরে সব ওষুধের পরীক্ষা-নিরীক্ষা ও নিয়ন্ত্রণ করতে পারে না। আর এর শিকার হচ্ছে সাধারণ মানুষ। অপরদিকে অনুমোদন ছাড়াই অনেকে ভেষজ ওষুধ তৈরি করাসহ প্রকাশ্যে দোকান খুলে বসেছে। কিন্তু এদের বিরুদ্ধে কার্যকর ব্যবস্থা নেওয়া হয় না।

সব রোগের সমাধান মেলে এক জায়গায়: মানুষের দেহের প্রত্যেকটি সমস্যার পেছনে কারণ থাকে এবং সেগুলো নিরূপণে রয়েছে বিশেষজ্ঞ চিকিৎসক। কিন্তু অবাক হলেও সত্য, রাস্তায় যে অশ্লীল লিফলেটের মাধ্যমে বিজ্ঞাপন দেওয়া হয় সেখানে এক সাথে হাজারো রোগের সমাধান রয়েছে বলে উল্লেখ থাকে। দেশের বিভিন্ন স্থানে মোড়ে মোড়ে প্রতিষ্ঠিত এসব কথিত রোগ নিরাময় কেন্দ্রে গিয়ে দেখা গেছে একই সঙ্গে সাধারণ রোগ থেকে শুরু করে মরণব্যাধি ক্যান্সারেরও চিকিৎসা করা হচ্ছে। সাইনবোর্ডে বড় বড় হরফে লেখা থাকে বিভিন্ন ধরনের রোগের বর্ণনা। মানুষের যেমন রোগের শেষ নেই তেমনি এদের চিকিৎসারও অন্ত নেই। একই হেকিম বা কবিরাজ একই সঙ্গে চর্ম, কাশি, যৌন চিকিৎসা করান এবং সেই সাথে ডায়াবেটিস, ক্যান্সারের মতো মারাত্মক সব রোগের সেবাও তার কাছে পাওয়া যাচ্ছে।

 যেখানে এখন পর্যন্ত মেডিকেলসায়েন্স থেকে ডায়াবেটিস কিংবা ক্যান্সার পুরোপুরি নিরাময়ের জন্য নির্দিষ্ট কোনো ওষুধ আবিষ্কার করা সম্ভব হয়নি। তার পরও কিভাবে তারা মানুষকে বিশ্বাস করিয়ে লাখ লাখ টাকা আদায় করছে সেটাই সুশীল সমাজের প্রশ্ন। যদিও কিছু কিছু প্রতিষ্ঠান রয়েছে যারা দীর্ঘ দিন ধরে গণমানুষের সেবা করে আসছে বলে জানা গেছে। তবে এখন ছত্রাকের মতো বেড়ে যাওয়া হারবাল, ইউনানী চিকিৎসাকেন্দ্রগুলো মূলত ব্যবসায়িক প্রতিষ্ঠান বলে মনে করেন খ্যাতিসম্পন্ন কয়েকজন বিশিষ্ট চিকিৎসক। এসব সেবাকেন্দ্রের সেবা তালিকার মধ্যে উল্লেখযোগ্য রোগগুলো হল চর্ম রোগ, কাশি, বাত, যৌন সমস্যা, আমাশয়, অর্শ, পাইলস, হাঁপানি, ওজন মেদ বা চর্বি কমানো, স্লিম হওয়ার উপায়, জন্ডিস, গ্যাস্টিক, টিউমার, সিফিলিস, ডায়াবেটিস, প্যারালাইসিস, হেপাটাইটিস, স্থায়ীভাবে মোটা হওয়া, নারী-পুরুষের জটিল ও কঠিন রোগসহ দুরারোগ্য ক্যান্সার ব্যাধির চিকিৎসা। বর্তমানে যেটি বড় বড় বিশেষজ্ঞ চিকিৎসকের পক্ষে করা সম্ভব হচ্ছে না, সেটি কবিরাজ বা হেকিম করতে পারেন।

তবু তারা চিকিৎসক!
বৃত্তাকার লোকের জটলা। ভেতর থেকে মাইক্রোফোনে কারও গলা ভেসে আসছে। ভিড়ের মধ্যে মাথা গলিয়ে দেখা গেল মধ্যবয়সী একজন লোক নানা অঙ্গভঙ্গিতে বিভিন্ন রোগের লক্ষণ ও চিকিৎসার কথা বলে যাচ্ছে। তাকে সাহায্য করছে একজন সহযোগী। সামনে সাজানো বিভিন্ন রকম গাছের বাঁকল, শেকড়, ফল ও কিছু প্রাণীর অঙ্গবিশেষ। লোকজন মন্ত্রমুগ্ধের মতো তার কথা শুনছে। যাদের বেশিরভাগই নিম্ন ও মধ্য আয়ের লোক।’ এরকম দৃশ্য চোখে পড়ল ফার্মগেট তেঁজগাও কলেজের সামনে। এ দৃশ্য শুধু ফার্মগেট নয়, রাজধানীসহ সারাদেশের গ্রাম-গঞ্জ, হাট-বাজার, বাস, রেল ও লঞ্চ স্টেশনগুলোতে চোখে পড়ে। কেউ কবিরাজ, হেকিম, সর্পরাজ, ডেন্টিস্ট ও ডাক্তার নামে চিকিৎসা করে চলছেন। 

বিভিন্ন চটকদারি কথাবার্তায় ও ধর্মীয় অনুভূতি জড়িত কথা বলে মানুষের দৃষ্টি আকর্ষণ করেন। অভিযোগ আছে কবিরাজ বা ডাক্তার দাবি করলেও এসব লোকের বেশিরভাগেরই কবিরাজি বা ডাক্তারি শাস্ত্রে নেই পর্যাপ্ত জ্ঞান। ফলে বিভিন্নভাবে প্রতারিত হচ্ছে নিম্নআয়ের রোগীরা। ফার্মগেট তেঁজগাও কলেজের সামনে চিকিৎসা দেন হেকিম লিটন। তার চিকিৎসার কার্যকারিতা সম্পর্কে জানতে চাইলে তিনি বলেন, ঊনিশ বছর ধরে এই জায়গায় ওষুধ বিক্রি করে আসছি। যদি ওষুধের কার্যকারিতা না থাকত তবে এতদিন এখানে থাকতে পারতাম না। মহান আল্লাহতালা গাছ-গাছড়ার মধ্যে সব রোগের ওষুধ দিয়ে দিয়েছেন। গাছ-গাছড়ার ওষুধ খেয়ে উপকার পায় না এমন লোক পাওয়া যাবে না। 

অনেক শিক্ষিত লোকের জটিল ও কঠিন রোগ তিনি ভালো করেছেন বলে দাবি করেন। জ্বর, কলেরা, আমাশয়, পুরুষত্বহীনতা, গ্যাস্ট্রিক, আলসার, বাত, এইচএসবি পজেটিভ ও ক্যান্সারসহ বিভিন্ন রোগের চিকিৎসাও তিনি করে থাকেন। তবে তিনি বলেন, ক্যান্সারের চিকিৎসা দীর্ঘমেয়াদি। নিয়মিত চিকিৎসায় তা নিরাময় করা সম্ভব। কোনো ডিগ্রি আছে কি-না জানতে চাইলে হেকিম লিটন বলেন, চট্টগ্রাম ইউনানী ও আয়ুর্বেদিক মেডিকেল কলেজ থেকে ইউনানী শাস্ত্রে ডিপ্লোমা ডিগ্রি নিয়েছেন এবং তার চিকিৎসা করার সরকারি নিবন্ধনও আছে। তিনি আরও বলেন, মৃত্যু ছাড়া সব রোগের চিকিৎসাই গাছের মাধ্যমে করা যায়। 

পুরান ঢাকার জগন্নাথ বিশ্ববিদ্যালয়ের সামনে ফুটপাতে একটি ট্রেতে প্লায়ার্স, কাঁচি, নিডিল, কিছু দাঁত ও ওষুধ নিয়ে বসেছেন আনোয়ার হোসেন। তিনি ডেন্টিস্ট বলে পরিচয় দেন। দাঁত তোলাসহ দাঁতের বিভিন্ন রোগের চিকিৎসা করে থাকেন। তবে চিকিৎসা করার বৈধ নিবন্ধন তিনি দেখাতে পারেননি। নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক মহাখালী এলাকায় শ্রীপুরী ট্যাবলেটের বিক্রয় প্রতিনিধি বলেন, ৩৩ বছর ধরে তিনি এই ট্যাবলেট বিক্রি করছেন। তার ট্যাবলেট খেয়ে উপকার পাননি এরকম শোনেননি।
তথ্য সুত্র : সাপ্তাহিক দেশকাল 

অবাধে চলছে ভুয়া চিকিৎসাবাণিজ্য ডাক্তার আবুল হাসান 5 of 5
চিকিৎসার অপর নাম সেবা। আর সেবাই হচ্ছে ধর্ম। অথচ জীবনরক্ষাকারী এই সেবা নিয়ে প্রতারণার অন্ত নেই। স্বনামধন্য চিকিৎসক ও চিকিৎসা প্রতিষ্ঠানের ...

সকল আপডেট পেতে লাইক দিয়ে যুক্ত থাকুন আমাদের সাথে।

ডাঃ হাসান (ডিএইচএমএস, পিডিটি - বিএইচএমসি, ঢাকা)

বাংলাদেশ হোমিওপ্যাথিক মেডিকেল কলেজ, ঢাকা

যৌন ও স্ত্রীরোগ, চর্মরোগ, কিডনি রোগ, হেপাটাইটিস, লিভার ক্যান্সার, লিভার সিরোসিস, পাইলস, IBS, পুরাতন আমাশয়সহ সকল ক্রনিক রোগে হোমিও চিকিৎসা নিন।

১০৬ দক্ষিন যাত্রাবাড়ী, শহীদ ফারুক রোড, ঢাকা ১২০৪, বাংলাদেশ
ফোন :- ০১৭২৭-৩৮২৬৭১ এবং ০১৯২২-৪৩৭৪৩৫
ইমেইল:adhunikhomeopathy@gmail.com
স্বাস্থ্য পরামর্শের জন্য যেকোন সময় নির্দিধায় এবং নিঃসংকোচে যোগাযোগ করুন।

পুরুষদের যৌন সমস্যার কার্যকর চিকিৎসা

  • শুক্রতারল্য এবং অকাল বা দ্রুত বীর্যপাত
  • প্রস্রাবের সাথে ধাতু ক্ষয়, প্রস্রাবে জ্বালাপোড়া
  • পায়খানার সময় কুন্থনে বীর্যপাত
  • পুরুষাঙ্গ দুর্বল বা নিস্তেজ এবং বিবাহভীতি
  • রতিশক্তির দুর্বলতা এবং দ্রুত বীর্যপাত সমস্যা
  • বিবাহপূর্ব হস্তমৈথন ও এর কুফল
  • অতিরিক্ত স্বপ্নদোষ সমস্যা
  • বিবাহিত পুরুষদের যৌন শিথিলতা
  • অতিরিক্ত শুক্রক্ষয় হেতু ধ্বজভঙ্গ
  • উত্তেজনা কালে লিঙ্গের শৈথিল্য
  • সহবাসকালে লিঙ্গ শক্ত হয় না
  • স্ত্রী সহবাসে পুরুপুরি অক্ষম

স্ত্রীরোগ সমূহের কার্যকর হোমিও চিকিৎসা

  • নারীদের ওভারিয়ান ক্যান্সার
  • জরায়ুর ইনফেকশন ও ক্যান্সার
  • নারীদের জরায়ুর এবং ওভারিয়ান সিস্ট
  • ফলিকুলার সিস্ট, করপাস লুটিয়াম সিস্ট
  • থেকা লুটেন, ডারময়েড, চকলেট সিস্ট
  • এন্ডোমেট্রোয়েড, হেমোরেজিক সিস্ট
  • পলিসিস্টিক ওভারি, সিস্ট এডিনোমা
  • সাদাস্রাব, প্রদর স্রাব, বন্ধ্যাত্ব
  • ফ্যালোপিয়ান টিউব ব্লক
  • জরায়ু নিচের দিকে নামা
  • নারীদের অনিয়মিত মাসিক
  • ব্রেস্ট টিউমার, ব্রেস্ট ক্যান্সার