যৌন জীবন লেবেলটি সহ পোস্টগুলি দেখানো হচ্ছে৷ সকল পোস্ট দেখান
যৌন জীবন লেবেলটি সহ পোস্টগুলি দেখানো হচ্ছে৷ সকল পোস্ট দেখান

রবিবার, ১০ ডিসেম্বর, ২০১৭

জীবনের প্রথম যৌন মিলন প্রসঙ্গে যা জানা জরুরী

যৌনতা জড়িয়ে আছে আমাদের জীবনের সাথে ওতপ্রোতভাবে। তাই এই বিষয়ে লজ্জা পাবার কিছু নেই। বিশেষ করে জীবনের প্রথম যৌন মিলন প্রসঙ্গে। আমাদের সমাজে সাধারণত বিয়ের আগে যৌন মিলনকে প্রশ্রয় দেয়া হয় না। আর যেহেতু যৌনতা বিষয়ে বিশেষ কথা বলতে আমরা অভ্যস্ত নই, তাই অনভিজ্ঞতার কারণে বেশিরভাগ নারী-পুরুষেরই প্রথম যৌন মিলনের অভিজ্ঞতা সুখকর হয় না।

জেনে রাখুন ৭টি বিষয়, যা জীবনের প্রথম যৌন মিলনের ক্ষেত্রে কাজে আসবে আপনার।

১) যৌন মিলন খুবই স্বাভাবিক একটি শরীরবৃত্তীয় ব্যাপার, এটা নিয়ে ভয় বা সংকোচ করার কিছু নেই। প্রথম যৌন মিলনেই যে আপনার দুর্দান্ত পারফর্মেন্স হবে, এমনটা ভাববেন না। এমনটা আশাও করবেন না। তবে হ্যাঁ, যত নার্ভাস হবেন, যৌন মিলনের অভিজ্ঞতা তত খারাপ হবে। তাই প্রথম মিলনের আগে অবশ্যই পর্যাপ্ত মানসিক প্রস্তুতি রাখুন।
২) প্রথম যৌন মিলনে খুব দ্রুত বীর্যপাত হয়ে যায় অধিকাংশ পুরুষের। এটা নিয়ে ঘাবড়ে যাবেন না। নিজে পুরুষত্বহীন বা দুর্বল ভাববেন না। কয়েক ঘণ্টা বিরতি দিয়ে আবার চেষ্টা করুন। আগের চাইতে ভালো ফল পাবেন।

৩) প্রথম যৌন মিলনের সময় প্রত্যেক নারীই ব্যথা পাবেন, এই ব্যাপারটির জন্য মানসিক প্রস্তুতি রাখুন। ব্যথা পাবেন, সামান্য রক্তপাত হবে। এই বিষয়টি নিয়ে একদম ঘাবড়ে যাবেন না। পরবর্তীতে একটু জ্বালাপোড়াও করতে পারে। তবে বিষয়টি সাময়িক। কয়েক ঘণ্টার মাঝেই ঠিক হয়ে যাবে। যদি রক্তপাত বন্ধ না হয় বা জ্বালাপোড়া বেশি করে, তাহলে অবশ্যই ডাক্তারের শরণাপন্ন হবেন।

৪) পুরুষ সঙ্গী একটু বিশেষ খেয়াল রাখবেন, যদি নারী সঙ্গীরও এটা প্রথম যৌন অভিজ্ঞতা হয়ে থাকে। জোর করে যোনিতে প্রবেশের চেষ্টা করবেন না। কিংবা বল প্রয়োগ করবেন না। খুব আদরের সাথে চেষ্টা করুন। সঙ্গিনীকে পর্যাপ্ত উত্তেজিত করুন, পুরো বিষয়টি সহজ হয়ে আসবে দুজনের জন্যই।

৫) প্রথম যৌন মিলনে বেশিরভাগ নারীরই অরগাজম আসবে না, কেননা নারীদের অরগাজমের সাথে অভিজ্ঞতার ব্যাপারটি জড়িয়ে আছে। তাই এটা নিয়ে হতাশ হবেন না।

৬) যৌন মিলনের ক্ষেত্রে প্রথম সতর্কতার নাম হচ্ছে গর্ভসঞ্চার রোধ করা। আর এই কাজে সবচাইতে সহায়ক হচ্ছে কনডম। পুরুষেরা অবশ্যই কনডম ব্যবহার করুন। প্রথম যৌন মিলনের ক্ষেত্রে এটাই বেশি উপযোগী। তবে কনডমের ব্যবহার প্রণালি খুব ভালোভাবে জেনে নিন।

৭) প্রথম যৌন মিলনেই কেউ গর্ভধারণ করতে চান না। তবে গর্ভ নিরোধক ব্যবস্থা গ্রহণের পরেও অনভিজ্ঞতার কারণে ভুল হয়ে যেতে পারে। যেমন সঠিক সময়ে কনডম ব্যবহার করতে না পারা, কনডমে ফুটো হয়ে যাওয়া বা ছিঁড়ে যাওয়া ইত্যাদি। এমন ঘটনা ঘটে গেলে সাহায্য নিতে হবে জরুরী গর্ভনিরোধক পিলের। আইপিল বা সমমানের যে কোন ওষুধ কাজে আসবে। খুব ভালো হয় ডাক্তারের সাথে পরামর্শ করে নিলে।
বিস্তারিত

মঙ্গলবার, ১২ এপ্রিল, ২০১৬

যৌন জীবনে পূর্ণাঙ্গ তৃপ্তির বৈজ্ঞানিক কিছু উপায়

যৌন জীবনে পুরুষের তুলনায় মহিলাদের অসুখী হওয়ার হার অনেক বেশি। এমনকি নিজের ভালোবাসার পুরুষটির সঙ্গেও যৌন জীবন নিয়ে খুশী নন অনেক মহিলাই। মুখে প্রকাশ না করলেও মনের মধ্যে ক্ষোভ নিয়ে জীবন যাপন করেন, মুখ ফুটে অনেকে বলতে পারেন না যৌন জীবনে নিজের অসুবিধার কথা। কিন্তু এরকম কেন? কেন অনেক নারী যৌন জীবনে অসুখী ও অতৃপ্ত? ভুল ধারণা এবং অজ্ঞতা যৌন জীবনে অসুখী রয়ে যাওয়ার মূল কারণ। সঙ্গে পর্যাপ্ত যৌন শিক্ষার অভাব। যৌনতা যে কেবল সন্তান উৎপাদনের মাধ্যম নয়। ভিডিও দেখুন -
নারী এবং পুরুষ উভয়ের জন্য একটি আনন্দের ব্যাপার। এই বিষয়টি সম্পর্কে আজও অজ্ঞ প্রচুর নারী। কী করতে হবে কিংবা কীভাবে করলে আরও আনন্দময় হয়ে উঠবে যৌন মিলন। সেটা জানা নেই বলে তারা রয়ে যান অসুখী ও অতৃপ্ত।

১. নিজেকে বুঝতে না পারা আসলে কী চাইছেন? তার শরীর কোন ডাকে কীভাবে সাড়া দিচ্ছে। কোন অঙ্গগুলো যৌনতার ক্ষেত্রে স্পর্শকাতর কিংবা নিজের শরীরের চাহিদাগুলো কী কী ইত্যাদি বিষয়ে অজ্ঞতা এবং বুঝতে না পারাও যৌন জীবনে অসুখী হবার একটি বড় কারণ।

২. কি চাই সেটা বলতে না পারা নিজের চাহিদাও জানেন, কিন্তু মুখ ফুটে বলতে পারছেন না নিজের ভালো লাগা না লাগার কথা। নারীদের যৌন জীবনে অতৃপ্ত থাকার অন্তরালে এটা একটি বিশেষ কারণ। এমনকি তিনি যে যৌন জীবনে সুখী নন এটাও পুরুষ সঙ্গীকে মুখ ফুটে বলতে পারেন না অনেক নারী।

৩. লজ্জা এবং সংকোচ অনেক নারী মনে করেন যে মেয়েদের যৌনতার কথা বলতে নেই, কিংবা মেয়েদের যৌনতার বিষয়টি নিয়ে কথা বলা কিংবা যৌন চাহিদা প্রদর্শন করার বিষয়টি খুবই লজ্জার। তাই মনের ইচ্ছা মনে চেপে রাখেন তারা।
৪. পুরুষ সঙ্গীর স্বার্থপরতা বেশির ভাগ পুরুষ নিজের সঙ্গিনীর যৌন চাহিদা পূরণের ব্যাপারে মনযোগী নন। বরং নিজের চাহিদা মিটে গেলে তারা স্বার্থপরের মত আচরণ করতে শুরু করেন. এটা নারীদের অতৃপ্ত থাকার একটি বড় কারণ।

৫. শারীরিক এবং মানসিক সমস্যা নিয়ে সংকোচ যৌনতায় আগ্রহ নেই কিংবা যৌনতা ঘিরে কোনো শারীরিক সমস্যা বোধ করছেন। এমন অবস্থায় ডাক্তারের কাছে যান না অধিকাংশ নারী। ফলে সামান্য একটু চিকিৎসার অভাবে তাদের যৌন জীবন রয়ে যায় বিভীষিকাময়।

৬. যৌনতা ঘিরে ভয় অনেক নারীর মাঝে যৌনতা বিষয়ে নানান রকমের ভীতি কাজ করে. ফলে এই বিষয়টি সম্পর্কে তারা কখনও সহজ মনোভাব পোষণ করতে পারেন না। চিরকাল বিষয়টি নিয়ে আড়ষ্টতা রয়ে যায়।
বিস্তারিত

বৃহস্পতিবার, ২১ মে, ২০১৫

বিয়ের পর নব দম্পতিদের যে কথাগুলো মেনে চলা উচিত

তরুণ দম্পতিরা বয়সের কারণেই অনেক বেশি উচ্ছল হয়ে থাকেন, জীবনটাকে উপভোগও করতে পারেন বেশি। কেননা পরস্পরের সঙ্গে বেশি সময় কাটাতে পারেন তারা।আবার বয়স কম হবার কারণে জীবনের অনেক কিছুই খুব সুন্দরভাবে গুছিয়ে নিতে পারেন। তবে হ্যাঁ, কমবয়সী দম্পতিদের ক্ষেত্রে কিছু ব্যাপার মনে রাখা খুবই জরুরি। কিছু ভুল করার কারণে জীবনের নানান পর্যায়ে সম্পর্ক নিয়ে চলে টানাপোড়ন।
বিস্তারিত

রবিবার, ১৯ এপ্রিল, ২০১৫

বিবাহিত জীবনের যে নিয়মগুলো মেনে না চলাই ভালো!

দাম্পত্য মানেই হরেক রকমের নিয়ম। এটা করা যাবে না, সেটা করা যাবে না কিংবা এটা-ওটা অবশ্যই করতে হবে- যুগে যুগে কালে কালে দাম্পত্য বিষয়ে এমন অসংখ্য নিয়মের কথা আমরা শুনে এসেছি এবং বলাই বাহুল্য যে পালনও করে যাচ্ছি। কিন্তু আসল ব্যাপারটা কি কেউ জানি? যেমন ধরুন, ঝগড়া করে নাকি আলাদা ঘুমানো ভালো নয়। কী হবে, যদি মাঝে মাঝে ঝগড়া করে আলাদাই ঘুমিয়ে যান? কিংবা কী হবে যদি সঙ্গীর কাছ থেকে কিছু কথা গোপনই রাখেন? জেনে নিন দাম্পত্যের এমন ১০টি নিয়মের কথা যেগুলো মাঝে মাঝে ভঙ্গ করা আসলে সম্পর্কের জন্যই ভালো। এতে সম্পর্কে থ্রিল আর রোমান্স, দুটোই বজায় থাকে অনেকদিন।
বিবাহিত জীবনের যে নিয়মগুলো মেনে না চলাই ভালো!
নিয়ম ১:- কখনোই রাগ নিয়ে ঘুমাতে যাবেন না রাগ নিয়ে ঘুমাতে যাবেন না কথাটির অর্থ হলো দাম্পত্যে বেশিক্ষণ রাগ করে থাকবেন না। তবে সত্য বলতে কি, মাঝে মাঝে একটুখানি রাগের প্রকাশ ভালো। তাতে সঙ্গী বোঝেন যে কোন ব্যাপারগুলো আপনার খারাপ লাগে। রাগ করে ঘুমিয়ে যাওয়াটাও খারাপ নয়। এতে বরং রাগ প্রশমিত হয়, দুজনেই মাথা ঠাণ্ডা করার সুযোগ পান এবং সকালে সব ঠিক হয়ে যায়।

নিয়ম ২:- সন্তানকে সর্বদাই প্রথমে রাখুন সন্তান খুবই গুরুত্বপূর্ণ সন্দেহ নেই। কিন্তু সবার আগে নিজেদের দাম্পত্যকেই রাখুন। আপনাদের সম্পর্ক ভালো থাকলে তবেই সন্তান সুখে থাকবে। 

নিয়ম ৩:- যৌন মিলনই সম্পর্ক রক্ষার প্রথম অস্ত্র সম্পর্ক মানে কেবলই যৌন মিলন নয় কিংবা ইচ্ছা না হলেও সঙ্গীকে খুশি করার জন্য যৌন মিলন >>> করতে হবে এমন কোন আইন নেই। সম্পর্কটিকে এমন করে তুলুন যেন মনের মিলনতাই আসল হয় এবং যৌন আকর্ষণ ধরে রাখার জন্য যা যা করতে হয় করুন। 

নিয়ম-৪:- পরস্পরের শখগুলোকে আপন করে করতে হবে এটা মোটেও কোন কাজের নিয়ম নয়। হ্যাঁ, দুজনের শখে মিল থাকা ভালো। কিন্তু সবকিছুই যদি একিই রকম হয় তাহলে খুব দ্রুত বৈচিত্র্য হারাবে জীবন। 

নিয়ম-৫:- রাগ করে কখনো পরস্পরকে দূরে সরিয়ে রাখবেন না না, খুব বেশী দূরত্বে কখনো যাবেন না। তবে মাঝে মাঝে একটু টক-মিষ্টি রাগারাগি কিন্তু বেশ ভালো জিনিস। দূরে গেলে তবেই না কাছে আসার আনন্দ পাওয়া যায়? 

নিয়ম-৬:- ঝগড়া করা চলবে না মোটেও ঝগড়ার অর্থ এই নয় যে আপনাদের সম্পর্ক খারাপ বা আপনারা কেউ কাউকে ভালোবাসেন না। বরং মাঝে মাঝে ঝগড়া মন পরিষ্কার করতে ও ভালোবাসা বাড়াতে সাহায্য করে। 

নিয়ম-৭:- সর্বদা সৎ থাকতে হবে না, সর্বদা সব কথাই যে জীবনসঙ্গীকে বলে দিতে হবে এমন কোন নিয়ম নেই। কিছু কথা না বলাই ভালো, বিশেষ করে এমন কিছু যেটা জানলে তিনি মনে কষ্ট পেতে পারেন। 

নিয়ম-৮:- দাম্পত্য খুবই সিরিয়াস একটি বিষয় দাম্পত্য সারাজীবনের একটি বিষয়। হ্যাঁ, এটি অবশ্যই সিরিয়াস। কিন্তু তাই বলে সারাক্ষণ গুরুগম্ভীর আচরণ করতে হবে এমন কোন কথা নেই। দাম্পত্যে যত হাসি-আনন্দ থাকবে, সম্পর্ক হবে ততই সুখের। 

নিয়ম-৯:- পরস্পরকে ছাড়া আনন্দ করবেন না একবার ভাবুন তো, রোজ রোজ একই খাবার খেতে বা একই পোশাক পড়তে আপনার ভালো লাগবে? তাহলে রোজ রোজ একই মানুষের সাথে সময় কাটাতেই বা ভালো লাগবে কেন? সঙ্গীকে অবশ্যই গুরুত্ব দেবেন, কিন্তু তাঁকে সুযোগ দিন আপনাকে ছাড়াও নিজের আপনজনদের সাথে আনন্দ করার। এবং নিজেই একই কাজ করুন। 

নিয়ম-১০:- কখনো আলাদা বিছানায় ঘুমাবেন না আলাদা বিছানায় ঘুমালেই যে দাম্পত্য শেষ, বিষয়টি এমন নয়। শারীরিক অসুস্থতা থেকে শুরু করে অনেক বিষয়েই দম্পতিরা আলাদা ঘুমাতে পারেন। ভালোবাসা থাকলে আসলে সব ঠিক।
বিস্তারিত

বৃহস্পতিবার, ৯ এপ্রিল, ২০১৫

বিয়ের ক্ষেত্রে যে বিষয়গুলি মনে রাখা জরুরি

বলা হয়, বিয়ের বিষয়টি স্বর্গীয় এবং সেখানেই এর ফয়সালা ঘটে। এ কারণে বিয়ে নিয়ে মানুষের এত জল্পনা-কল্পনা, আনন্দ আর উত্তেজনা। কিন্তু গোটা বিশ্বে বিবাহ বিচ্ছেদের হার আশংকাজনক হারে বেড়ে গেছে বলে মনে করেন বিশেষজ্ঞরা। কাজেই এত আয়োজন কি সব নিরর্থক? বিশেষজ্ঞের মতে, কিছু ভুল কারণের ওপর ভিত্তি করে মানুষ বিয়ে করেন। বিয়ের পর এসব কারণের সত্যতা খুঁজে পাওয়া যায় না। তখনই দাম্পত্য জীবন মানুষকে নিরাশ করে। আর তাই কাল হয়ে দাঁড়ায়। এখানে জেনে নিন, বিয়ে সম্পর্কে ১০টি ধারণার কথা যা আসলে ভুল চিন্তার সামিল।

১. আপনি হয়তো একাকী মানুষ যিনি পেশাজীবন নিয়ে দারুণ ব্যস্ত সময় কাটান। অনেকে মনে করেন, এই একঘেয়েমি অবস্থার অবসান ঘটবে যখন একজন সঙ্গী বা সঙ্গিনী পাওয়া যাবে। মূলত এই পরিস্থিতি থেকে বেরিয়ে আসার জন্যে বিয়ে করা হয়। বিয়ের লক্ষ্য ও উদ্দেশ্য এটি নয়। 
বিয়ের ক্ষেত্রে যে বিষয়গুলি মনে রাখা জরুরি
২. কারো সঙ্গে ডেটিং দেওয়া মানেই তাকে বিয়ে করা কোনো নিয়মের মধ্যে পড়ে না। তাকে যদি ভালো নাই বাসেন, শুধু সময় কাটাতে ডেটিং দিয়েছেন, সেক্ষেত্রে বিয়ে করাটা বড় ধরনের ভুল। তাকে জীবনের আদর্শ সঙ্গী-সঙ্গিনী মনে না করা পর্যন্ত বিয়ে করা উচিত নয়। 

৩. অনেকেই মনে করেন, বয়স হয়ে যাচ্ছে দেখে বিয়ে করে ফেলা উচিত। এটা বিয়ের একমাত্র কারণ হতে পারে না। অন্যান্য বিষয় যখন আসে, তখন সব পাল্টে যায়। 

৪. দৈহিক সৌন্দর্য মুগ্ধ হয়ে বিয়ের ইচ্ছা অন্যতম ভুলের একটি। বিয়েটা কোনো মোহ নয়। শুধু মোহাচ্ছন্ন হয়ে বিয়ে করলে পরবর্তীতে মোহ কেটে যাওয়ার পর সংসারে বিতৃষ্ণা চলে আসতে পারে। 

৫. একটা সময় পর্যন্ত মানুষ একাকী থাকতে পারে। এরপর একা থাকাটা অসহনীয় হয়ে ওঠে। তখন মনে হয়, যাকে পাওয়া যাবে তাকেই বিয়ে করে ফেলতে হবে। এই উদ্দেশ্যে বিয়ে করলে শিগগিরই অস্থিরতা ভর করবে। 

৬. অনেকেই অর্থনৈতিক মুক্তির জন্যে বিয়েকে উপায় হিসাবে গ্রহণ করেন। ধনী পুরুষ বা সম্পদশালীর মেয়েকে বিয়ে করতে চান অনেকে। এখানে অর্থটাই মুখ্য থাকে। বিয়ে, আত্মিক বন্ধন, সংসার এগুলো হয়ে পড়ে মূল্যহীন। তাই এই কারণটি বিয়ের শর্ত হতে পারেন না। 

৭. সম্পর্কে জড়ানোর পর একে অপরকে বোঝার চেষ্টা করেন। দুজনের চাওয়া-পাওয়ার সমন্বয় হয়ে ভবিষ্যতের স্বপ্ন দেখতে শুরু করেন প্রেমিক-প্রেমিকারা। কিন্তু একটা সময় আসতে পারে যখন মনে হবে যে, দুজন আসলে দুজনের জন্যে নন। তখন সরে আসাটাই বুদ্ধিমানে লক্ষণ। কিন্তু অনেকেই মানসিক টানাপড়েনে ভোগেন। ভাবেন, যেহেতু প্রেম করেছি, কাজেই মন না চাইলেও বিয়ে করতেই হবে। এতে করে ওই বিয়েটা স্বপ্নহীন হয়ে পড়ে। 

৮. সব বন্ধুই বিয়ে করে ফেলছেন। কাজেই ইচ্ছা না করলেও আপনার করতে হচ্ছে। এ ধরনের চাপ পরিবার ও বন্ধুমহল থেকে আসে। সব বিবাহিত বন্ধুদের মাঝে ব্যাচেলর হয়ে থাকা কিছুটা অস্বস্তিকর হতে পারে। কিন্তু তাদের সঙ্গে খাপা খাওয়ানোর জন্যে বিয়ে করা অর্থহীন। 

৯. বিয়ে না করতে চাইলেও বাবা-মায়ের চাপে বিয়ে করার কোনো অর্থ থাকে না। অভিভাবক চাইছেন বলেই বিয়ে করেছেন। সংসারধর্ম পালনের স্বপ্ন আপনি দেখেননি। সে ক্ষেত্রে দাম্পত্য জীবন কখনো টেকে না। 

১০. আরেকটি বিষয় মনে কাজ করে। তা হলো, একজন সঙ্গী বা সঙ্গিনী থাকলে সে আপনার দেখভাল করতে পারবে। নিজের যত্নআত্তির জন্যে যদি বিয়ে করেন, তবে আপনি স্বামী বা স্ত্রীকে স্রেফ সেবক-সেবিকার স্থানে রেখেছেন। বিয়ের বন্ধন এই উদ্দেশ্য সৃষ্টি হয়নি।
বিস্তারিত

সোমবার, ১৬ ফেব্রুয়ারী, ২০১৫

আপনি পুরুষ? জেনে নিন, বীর্যহীনতার কারণগুলি

জীবনযাপনের একটি অন্যতম অঙ্গ হলেও, সমাজের একটা বড় অংশের কাছেই যৌনতা মানই গোপন বিষয়। কানে কানে বলতে হয়। বন্ধুমহলে ঠাট্টার বিষয়। যার ফলে অনেক ক্ষেত্রেই একজন প্রাপ্তবয়স্ক পুরুষ বা নারী যৌন সমস্যায় ভুগলে চিকিত্‍সকের কাছে যেতেও লজ্জা পেয়ে থাকেন। অথচ হোমিওতে পুরুষদের যৌন যৌন সমস্যাগুলির সর্বাধিক কার্যকর ট্রিটমেন্ট রয়েছে। কিছুদিনের প্রপার হোমিও ট্রিটমেন্ট নিলেই  এ সংক্রান্ত সমস্যাগুলি মূল থেকে নির্মূল হয়ে রোগী পরিপূর্ণ সুস্থ হয়ে যৌনতায় সক্ষমতা অর্জন করে থাকে এবং এর জন্য বার বার ঔষধ খাওয়ারও প্রয়োজন পড়ে না।

দেখা যায় পুরুষরা অনেকেই মনে করেন, যৌন অসুস্থতা মানেই লজ্জার বিষয়। পৌরুষ নিয়ে প্রশ্ন!। বিশেষ করে আমাদের এই ভারতীয় উপমহাদেশে এখনও অনেকের বদ্ধমূল ধারণা, সন্তান না হওয়া শুধুমাত্র মহিলাদেরই সমস্যা। কিন্তু জানেন কি, দেশের শহরগুলিতে বহু দম্পতির পুরুষ সঙ্গী বীর্যহীনতায় ভোগেন। সমীক্ষা বলছে, উপমহাদেশের ভারতের শহরে প্রতি ৫টি দম্পতির মধ্যে একটি দম্পতির পুরুষ সঙ্গী বীর্যহীনতার শিকার। যার জেরে সন্তান লাভ হয় না। 
আপনি পুরুষ? জেনে নিন, বীর্যহীনতার কারণগুলি
বিশ্বের তাবড় চিকিত্‍সা বিজ্ঞানীরা কয়েকটি কারণ চিহ্নিত করেছেন। এই কারণগুলির জন্যই পুরুষ বীর্যহীনতার শিকার হয়ে থাকেন। কারণগুলি নিয়ে একটু আলোচনা করা যাক। এবং এই ধরনের কোনও শারীরিক সমস্যা হলেই চিকিত্‍সকের পরামর্শ নেওয়া দরকার বলেই মত বিশেষজ্ঞদের। 

মাম্পস :- বয়ঃসন্ধির পরে যদি মাম্পস হয়, তাহলে অবিলম্বে চিকিত্‍সকের দ্বারস্থ হওয়া উচিত। কারণ বিজ্ঞানীরা বলছেন, বয়ঃসন্ধির সময় বা পরে মাম্পস, পুরুষের অণ্ডকোষে শুক্রাণু উত্‍পাদনকারী কোষগুলি নষ্ট করে দিতে পারে। ফলে কোনও পুরুষ আজীবন বীর্যহীনতার শিকার হতে পারেন। 

ভ্যারাইকোসেল :- চিকিত্‍সা বিজ্ঞনীরা জানাচ্ছেন, ভ্যারাইকোসেল হল শুক্রনালীর শিরাঘটিত একপ্রকার টিউমার। এই ধরনের টিউমার হলে, যে শিরার মাধ্যমে অণ্ডকোষে রক্ত সঞ্চালিত হয়, সেই শিরা ফুলে যায়। ফলে অণ্ডকোষে রক্ত সঞ্চালন ঠিকমতো হয় না। এবং শুক্রাণু তৈরিও হওয়া কমে যায়। দেখা গিয়েছে, ভ্যারাইকোসেলের সম্পূর্ণ চিকিত্‍সার পরেও মাত্র এক চতুর্থাংশ ব্যক্তির শুক্রাণু তৈরি সন্তোষজনক ভাবে বেড়েছে। 

আনডিসেন্ডেড টেস্টিকল্‌স :- অর্থাত্‍ অণ্ডকোষ অণ্ডথলিতে না গিয়ে, অ্যাবডমেনেই থেকে যাওয়া। পুত্র সন্তানের জন্মের আগে মাতৃগর্ভেই তৈরি হয়ে যায় অণ্ডকোষ। এরপর ঠিক জন্মের কয়েক দিন আগে দু'টি অণ্ডকোষ অ্যাবডমেন থেকে অণ্ডকোষ থলিতে নেমে আসে। মাতৃগর্ভে যখন এই প্রক্রিয়াটি ঠিকমতো হয় না, তখনই আনডিসেন্ডেড টেস্টিকল্স-এর সমস্যা তৈরি হয়। চিকিত্‍সার পরিভাষায় যাকে বলে ক্রিপটরচিডিজম। এর জেরে একজন পুরুষকে সারা জীবন বীর্যহীনতায় ভুগতে হতে পারে। 

টেস্টিকিউলার ক্যান্সার :- অণ্ডকোষে ব্যথা অনুভব করলে অবিলম্বে চিকিত্‍সকের দ্বারস্থ হওয়া অত্যন্ত জরুরি। কারণ অনেক সময় অণ্ডকোষে টিউমার হলে এক ধরনের ব্যথা হয়। এই ব্যথাকে অগ্রাহ্য করলে বিপদ। ওই টিউমার থেকে ক্যান্সার হতে পারে। ঠিক সময়ে ধরা না-পড়লে ক্যান্সার ছড়িয়ে যায় দেহের অন্যান্য অংশেও। ফলে মৃত্যুও হতে পারে। 

ডায়াবেটিস :- ডায়াবেটিস আক্রান্ত হলেও শুক্রাণু তৈরি কমে যেতে পারে। চিকিত্‍সকরা জানাচ্ছেন, ডায়াবেটিস রোগীদের অনেক ক্ষেত্রেই শুক্রাণু তৈরি কমতে শুরু করে। এক সময় তৈরি হওয়া একেবারে বন্ধ হয়ে যাওয়ারও আশঙ্কা থাকে। 

অস্ত্রোপচার বা কোনও ক্ষত :- কোনও দুর্ঘটনায় অণ্ডকোষে গুরুতর আঘাত লাগলে বা কোনও ক্ষত হলে শুক্রাণু তৈরিতে প্রভাব পড়ে। খেলতে গিয়ে অণ্ডকোষে আঘাত পেলে বা কোনও দুর্ঘটনায় আহত হলে অণ্ডকোষগুলিতে রক্ত সঞ্চালন কমে যেতে পারে। এমনকি হারনিয়া অস্ত্রোপচারের ফলেও বীর্যহীনতা হতে পারে। 

শারীরির ভারসাম্যহীনতা :-
সঙ্গমের সময় অনেক পুরুষের যৌনাঙ্গ থেকে নির্গত ধাতুতে শুক্রাণু থাকে না। অনেক সময় মূত্রনালীতে সংক্রমণ হলে এই ধরনের সমস্যা হয়। এর ফলে শুক্রাণুর সঙ্গে অন্যান্য তরলের মিশ্রণ না হওয়ায় বীর্য তৈরি হয় না। 

তপ্ত আবহাওয়া বা পরিবেশ :- শুক্রাণু তৈরিতে তাপমাত্রা একটা বড় ভূমিকা নেয়। দেখা গিয়েছে, যে সব ব্যক্তি দিনের পর দিন খুব গরমের মধ্যে কাজ করেন (কারখানা, বয়লার রুম ইত্যাদি), তাঁদের শুক্রাণু তৈরি কমে যায়। 

প্রচণ্ড মানসিক চাপ ও ধূমপাম, মদ্যপান :- বর্তমান সময়ে দেখা গিয়েছে, বীর্যহীনতার অন্যতম কারণ প্রচণ্ড কাজের চাপ, মানসিক চাপ, দুশ্চিন্তা, অনিদ্রা, ধূমপান ও মদ্যপান। তবে চিকিত্‍সকরা জানাচ্ছেন, মানসিক রোগ, যেমন অবসাদ, উদ্বেগ কমানোর আধুনিক চিকিত্‍সায় এই ধরনের সমস্যার সমাধান হয়ে যাচ্ছে।
বিস্তারিত

বুধবার, ৪ ফেব্রুয়ারী, ২০১৫

নারী পুরুষের যৌনতা নিয়ে কিছু সার কথা - যা না জানলেই নয়

রতিসুখের চরম বিন্দুতে পৌঁছনোর বিষয়ে এযাবত হয়তো কয়েক কোটি প্রবন্ধ পড়ে ফেলেছেন নিশ্চয়? জেনে রাখুন, ওই সমস্ত আসলে আদ্যপান্ত জঞ্জাল। এ ব্যাপারে আসল কথাটা বলে বিজ্ঞান। আসুন কিছু বিজ্ঞানভিত্তিক যৌনচর্চা হয়ে যাক।
নারী পুরুষের যৌনতা নিয়ে কিছু সার কথা - যা না জানলেই নয়
  • গবেষণায় দেখা গিয়েছে, মোজা পরে সঙ্গম করলে চরম সুখ প্রাপ্তি হয়। বিজ্ঞানীদের মতে, পায়ে মোজা পরা থাকলে যৌন সুখ কয়েক গুণ বেড়ে যায়। তবে উত্‍কট রহের মোজা পরলে হিতে বিপরীত হতে পারে বলে সতর্ক করা হয়েছে।
  • হাসিখুশি পুরুষের প্রতি আদৌ কোনও যৌন আকর্ষণ বোধ করে না নারী। বরং গোমড়া মুখের সঙ্গীর প্রতি দৈহিক মিলনের তীব্র কামনা অনুভব করেন মহিলারা। অন্যদিকে, নারীর হাসিমুখ দেখে পুরুষের যৌন ইচ্ছা বৃদ্ধি পায় বলে জানিয়েছেন বিজ্ঞানীরা। সুতরাং কাতুকুতু দিলেও কোনও মতে পুরুষের হাসি চেপে রাখাই বিধেয়।
  • রৌদ্রস্নানে টেস্টোস্টেরন বৃদ্ধি পায়। এর ফলে স্ত্রী পুরুষ উভয়েরই মনে তীব্র যৌন কামনা জাগে। মিলনের আগ্রহ বাড়িয়ে তুলতে অতএব রোদ পোহানো অভ্যেস করতে পারেন।
  • পূর্বরাগ পর্যায় গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা পালন করতে পারে পুরুষের নাক। নাকের সামনের নরম অংশের স্পর্শে নারীর যৌন চেতনা জেগে ওঠে। তীব্র কামোন্মাদনা তৈরি হয়।
  • ঘর্মাক্ত পুরুষ দেখলে অধিকাংশ মহিলারপ্রবল যৌন ইচ্ছা তৈরি হয় বলে সমীক্ষায় জানা গিয়েছে। আসলে পুরুষের ঘামের সঙ্গে অ্যান্ড্রোস্ট্যাডিএনোন ক্ষরণের ফলে জাগ্রত হয় নারীর যৌন চেতনা।
  • একটি ভুল ধারণা প্রচলিত রয়েছে যে পেশিবহুল পুরুষ মাত্রই নারীকে চরম যৌন তৃপ্তি দিতে সক্ষম। কিন্তু বিজ্ঞানীরা জানাচ্ছেন, যে সমস্ত পুরুষের শরীরের মধ্যপ্রদেশ স্ফীত, তাঁরাই দীর্ঘ সম্ভোগ করতে পারেন। আসলে শরীরে চর্বি থাকার মানে হল স্ত্রী হরমোন এস্ট্র্যাডিওল-এর আধিক্য। এই হরমোনের সাহায্যে চরম রতিসুখের স্তরে পৌঁছতে সাধারণের তুলনায় অন্তত ৫ মিনিট বেশি সময় লাগে ভুঁড়ি সমৃদ্ধ পুরুষের। তাই সিক্স প্যাক্স-এর মোহ ত্যাগ করে মহিলারা স্থূল শয্যাসঙ্গী বাছলেই অধিক যৌন তৃপ্তি লাভ করবেন।
  • যত্ন করে দাড়ি কামানো মুখের চেয়ে গালে খোঁচা খোঁচা দাড়িই নারীকে বেশি আকর্ষণ করে বলে জানা গিয়েছে। এলোমেলো চুল আর অগোছাল দাড়ির পুরুষের সঙ্গে যৌন মিলনে তৃপ্ত হন বেশির ভাগ মহিলা।
  • অন্তরঙ্গতা বাড়াতে চুমুর বিকল্প নেই, জানিয়েছেন বিশেষজ্ঞরা। যে যুগল ঘন ঘন চুম্বনে অভ্যস্ত, দেখা গিয়েছে দীর্ঘায়িত যৌন মিলনের আনন্দ তাঁরাই উপভোগ করেন।
  • মশলাদার খাবার পুরুষের যৌন ক্ষমতা বাড়াতে সাহায্য করে বলে জানা গিয়েছে। পছন্দের পুরুষের থেকে সম্পূর্ণ দৈহিক সুখ লাভ করতে হলে তাঁকে মশলা মিশ্রিত সুস্বাদু পদ পরিবেশন করুন।
  • বেশির ভাগ পুরুষই মেয়েরা লাল রঙের পোশাক পরলে তীব্র যৌন আকর্ষণ বোধ করেন। তাই কামনার সঙ্গীকে যৌন সচেতন করে তুলতে রাঙা সাজে সেজে উঠুন।
  • মাথা ধরার অব্যর্থ দাওয়াই হল রতিসুখ, জানিয়েছেন বিজ্ঞানীরা। তাঁদের মতে, যৌন তৃপ্তি অনেক সময় আংশিক অথবা পুরোপুরি মাইগ্রেন সারাতে সক্ষম।
  • বিজ্ঞানীদের মতে, বয়স্কা মহিলারা অল্পবয়েসীদের চেয়ে তুলনায় দ্রুত যৌন সুখের চরম সীমায় পৌঁছান। এই কারণে বয়সে বড় নারীর সঙ্গে পুরুষের সঙ্গম বেশি তৃপ্তিদায়ক বলে মনে করেন তাঁরা।
  • জানেন কি, ঘুমিয়ে ঘুমিয়েও বহু মানুষ রতিক্রিয়াশীল থাকতে পারেন? ঘুমিয়ে ঘুমিয়ে খাওয়া অথবা হেঁটে-চলে বেড়ানোর অভ্যাসের মতো কেউ কেউ ঘুমন্ত অবস্থায় দিব্যি যৌন মিলনে লিপ্ত হতে পারেন। এই অসুখের নাম 'সেক্সমনিয়া'। মজার কথা, ঘুম ভাঙলে ঘটনাটি একেবারেই ভুলে যান তাঁরা।
তবে যতই টিপস নিন না কেন, কার্যক্ষেত্রে সঠিক দাওয়াইটি মনে করে প্রয়োগ করতে পারলেই অভীষ্ট সিদ্ধি হবে। মনে রাখবেন, যৌন সংক্রান্ত কোনো রোগ থাকলে আগে তার ট্রিটমেন্ট করাই বিধেয়। 
বিস্তারিত