যৌন ও স্ত্রীরোগ, চর্মরোগ, কিডনি রোগ, হেপাটাইটিস, লিভার ক্যান্সার, লিভার সিরোসিস, পাইলস, IBS, পুরাতন আমাশয়সহ সকল ক্রনিক রোগে হোমিও চিকিৎসা নিন। ডাঃ হাসান, আধুনিক হোমিওপ্যাথি, যাত্রাবাড়ী, ঢাকা। ফোন করুন:- ০১৭২৭-৩৮২৬৭১

মঙ্গলবার, ১২ নভেম্বর, ২০১৩

পুরুষের বীর্যের যাবতীয় তথ্যদি

এটা আগেই জেনে রাখা ভালো যে বীর্য শুধুমাত্র পুরুষের প্রজননতন্ত্র থেকে নির্গত হয়। নারীর বীর্য বলে কোন কিছু নেই। নারীর কখনো বীর্য নির্গত হয়না। তবে যেহেতু নারীর যৌনাঙ্গ এবং মুত্রথলি খুব কাছাকছি অবস্থিত এবং মিলনকালে মুত্রথলিতে যথেষ্ট চাপ পড়ে তাই মিলনে পুর্নতৃপ্তিতে শেষের দিকে সামান্য পরিমান প্রস্রাব বেরিয়ে যেতে পারে যাকে পুরুষ/নারী অজ্ঞতাবশত বীর্য বলে ধরে নেন।
বীর্য কি?
বীর্য হল অসচ্ছ, সাদা রঙের শাররীক তরল যা বীর্যস্থলনের সময় পুংলিঙ্গের ভিতর দিয়ে প্রবাহিত মুত্রনালীর মাধ্যমে শরীর থেকে বাহিরে নির্গত হয়। বীর্যের বেশি অংশ যৌন অনুভুতির সময় পুরুষ প্রজননতন্ত্রের ক্ষরন/নিঃসরন হতে সৃষ্ট।
৬৫% বীর্য-তরল ধাতুগত গুটিকা (seminal vesicles) দ্বারা উৎপাদিত।
৩০% থেকে ৩৫% মূত্রস্থলীর গ্রীবা সংলগ্ন গ্রন্থিবিশেষ থেকে সরবরাহকৃত।
৫% শুক্রাশয় এবং অন্ডকোষের epididymes নামক অংশ হতে।

বীর্যে প্রাপ্ত রাসায়নিক পদার্থগুলো হলো যথাক্রমে – সাইট্রিক এসিড, ফ্রি এ্যামিনো এসিড, ফ্রাকটোস, এনজাইম, পসপোহ্‌রিলকোলিন, প্রোষ্টাগ্লেন্ডিন, পটাশিয়াম এবং জিংক। গড়পড়তা প্রতি বীর্যস্থলনে উৎপাদিত বীর্যের পরিমান ২ থেকে ৫ মিঃলিঃ। বীর্যের পরিমান এবং পুর্বের বীর্যপাতের সময় ব্যবধানের হিসাব অনুযায়ী বীর্যের ঘনত্বের তারতম্য এবং প্রতিবার বীর্যের সাথে (একেকবারের স্থলনে) শুক্রানুর সংখ্যা ৪ (চার) কোটি থেকে ৬০ (ষাট) কোটি পর্যন্ত হতে পারে। বীর্যে শতকরা ২০ ভাগ শুক্রানু জীবিত না হলে সে পরুষ বন্ধা – অর্থাৎ সন্তান জন্মদানে অক্ষম। ডাক্তারী পর্যবেক্ষনের জন্য সাধারনত হস্তমৈথুনের সাহায্যে বীর্যের নমুনা সংগ্রহ করা হয়। তবে বীর্যদাতা যদি শাররীক মিলন ব্যতিত বীর্যস্থলনে অসমর্থ্য হন, সেক্ষেত্রে রাসায়নিক বিক্রিয়া হয়না এবং শুক্রনিধক পদার্থ নেই এমন কনডম ব্যবহার করে বীর্যের নমুনা সংগ্রহ করা হয়ে থাকে।

বাভাবিক/সাধারন বীর্য দেখতে কেমন?
বাহ্যিক রূপ: বীর্য সাধারনত দেখতে মেঘলা সাদা অথবা কিছুটা ধুসর তরল। বীর্যস্থলেনের সাথে সাথে এটি দেখতি গাঢ় এবং জেলীর মত ইষৎ শক্ত। তবে পরবর্তি ৩০ মিনিটের মধ্যে বীর্য তরল এবং পানির মত পাতলা হয়ে যায়। বীর্যের পুরু এবং তরলীকরণ প্রজনন তথা সন্তান জন্ম দেবার ক্ষেত্রে গুরুত্বপুর্ন একটি বিষয়।

গন্ধ: বীর্যে ক্লোরিন এর মত একপ্রকার স্বাভাবিক গন্ধ থাকে।

স্বাদ: অধিক মাত্রায় ফলশর্করা (fructose) থাকার কারনে এটি কিছুটা মিষ্টি স্বাদযুক্ত। তবে ব্যাক্তিবেধে বীর্যের স্বাদের পার্থক্য পরিলক্ষিত হয়। এমনকি খাদ্যাভ্যাসের পার্থক্য থেকে বীর্যের স্বাদের পরিবর্তন হতে পারে।
কি রকম বীর্যকে “অস্বাভাবিক বীর্য” বলা হবে ?

অল্প পরিমানে বীর্য বের হওয়া: বীর্যস্থলনে বীর্যের পরিমান কম হবার কারন হতে পারে ধাতুগত গুটিকা (seminal vesicles) অথবা বীর্য নিঃসরন নালীর(ejaculatory duct) প্রতিবন্ধকতা।

অল্প পরিমান বীর্যরস নির্গত হওয়া হয়তো বিপরিতগামী বীর্যস্থলনের কারনেও হতে পারে, যদি বীর্য নিঃসরনের সময় বীর্যের প্রবাহ মুত্রনালী দিয়ে বাহিরের দিকে না হয়ে উল্টোপথে মুত্রথলির দিকে প্রবাহিত হয় – সে অবস্থায় এমনটি হতে পারে। বীর্যের এই বিপরিতমুখীতা মূত্রস্থলীর গ্রীবা সংলগ্ন গ্রন্থির সংক্রমন, পুর্বের কোন মূত্রস্থলীর গ্রীবা সংলগ্ন গ্রন্থির (prostate) অস্ত্রপ্রচার, ডায়াবেটিস এবং অনেক ঔষধের পাশ্বাপ্রতিক্রিয়ায়ও হতে পারে।

অতিরিক্ত গাঢ় এবং পিন্ডাকার বীর্য: শরীরে পানিশুন্যতার কারনে বীর্য হয়তো অস্বাভাবিক গাঢ় হতে পারে, তবে এটি একটি অস্থায়ী অবস্থা। গাঢ় / পিন্ডাকার বীর্যের একটু ভয়ানক কারন হল শুক্রাশয় এর নিন্মমুখী স্তর। যদি আপনার বীর্য একনাগাড়ে দুই থেকে তিন সপ্তাহ এ রকম আস্বাভাবিক দেখা যায় তবে অবশ্যই ডাক্তারের শরনাপন্ন হতে হবে।

লাল অথবা বাদামী রঙের বীর্য: যদি আপনার বীর্য লাল অথবা বাদামী রঙের দেখা যায় তাহলে মূত্রস্থলীর গ্রীবা সংলগ্ন গ্রন্থি (prostate) তে হয়তো বিস্ফোরিত রক্তপ্রবাহ হচ্ছে। এটি সাধারন বীর্যস্থলনের সময়ও দেখা যেতে পারে। এবং সাধারনত এক কিংবা দুই দিনে বীর্য তার স্বাভাবিক রঙে ফিরে আসতে পারে। যদি বীর্যের এই রঙ পরিবর্তন একটানা কয়েকদিন থেকে দেখা যায় তাহলে অবশ্যই ডাক্তারের কাছে পরামর্শের জন্য যেতে হবে। অবিরাম বীর্যের মধ্যে রক্তের উপস্থিতি হয়তো কোন প্রকার সংক্রমন, রক্তক্ষরন (হয়তো মানসিক আঘাত জনিত কারনে), এবং বিরল ক্ষেত্রে ক্যন্সারের কারনে দেখা যেতে পারে।

হলুদ কিংবা সবুজ রঙের বীর্য: সাধারন বীর্যে ধুসর সাদা কিংবা ইষৎ হলুদ বনর্চ্ছটা থাকতে পারে। হলুদ কিংবা সবুজ রঙের বীর্য হয়তো রোগ সংক্রমনতা নির্দেশ করে, হতে পারে এটি যৌনবাহিত রোগ ”গনেরিয়া‘র“ লক্ষন। আপনার পাশ্ববর্তী কোন চিকিৎসালয়ে যান যেখানে যৌন বাহিত রোগের চিকিৎসা সেবা দেয়া হয়। যদি বীর্যের এই বিবর্নতা গনেরিয়ার কারনে হয়ে থাকে তাহলে উপযুক্ত এ্যান্টিবায়োটিক ঔষধে চিকিৎসা সম্ভব।

বিরক্তিকর গন্ধযুক্ত বীর্য: বীর্যের বিরক্তিকর গন্ধের প্রায়শঃ প্রধান কারন হলো রোগ সংক্রমনের লক্ষন। বীর্যে দুর্গন্ধ পরিলক্ষিত হলে তাড়াতাড়ি ডাক্তারের শরনাপন্ন হতে হবে। দ্রুত আরোগ্যের জন্য হোমিওপ্যাথি চিকিৎসা নেয়া ভালো।

পুরুষের বীর্যের যাবতীয় তথ্যদি ডাক্তার আবুল হাসান 5 of 5
এটা আগেই জেনে রাখা ভালো যে বীর্য শুধুমাত্র পুরুষের প্রজননতন্ত্র থেকে নির্গত হয়। নারীর বীর্য বলে কোন কিছু নেই। নারীর কখনো বীর্য নির্গত হয়...

সকল আপডেট পেতে লাইক দিয়ে যুক্ত থাকুন আমাদের সাথে।

ডাঃ হাসান (ডিএইচএমএস, পিডিটি - বিএইচএমসি, ঢাকা)

বাংলাদেশ হোমিওপ্যাথিক মেডিকেল কলেজ, ঢাকা

যৌন ও স্ত্রীরোগ, চর্মরোগ, কিডনি রোগ, হেপাটাইটিস, লিভার ক্যান্সার, লিভার সিরোসিস, পাইলস, IBS, পুরাতন আমাশয়সহ সকল ক্রনিক রোগে হোমিও চিকিৎসা নিন।

১০৬ দক্ষিন যাত্রাবাড়ী, শহীদ ফারুক রোড, ঢাকা ১২০৪, বাংলাদেশ
ফোন :- ০১৭২৭-৩৮২৬৭১ এবং ০১৯২২-৪৩৭৪৩৫
ইমেইল:adhunikhomeopathy@gmail.com
স্বাস্থ্য পরামর্শের জন্য যেকোন সময় নির্দিধায় এবং নিঃসংকোচে যোগাযোগ করুন।

পুরুষদের যৌন সমস্যার কার্যকর চিকিৎসা

  • শুক্রতারল্য এবং অকাল বা দ্রুত বীর্যপাত
  • প্রস্রাবের সাথে ধাতু ক্ষয়, প্রস্রাবে জ্বালাপোড়া
  • পায়খানার সময় কুন্থনে বীর্যপাত
  • পুরুষাঙ্গ দুর্বল বা নিস্তেজ এবং বিবাহভীতি
  • রতিশক্তির দুর্বলতা এবং দ্রুত বীর্যপাত সমস্যা
  • বিবাহপূর্ব হস্তমৈথন ও এর কুফল
  • অতিরিক্ত স্বপ্নদোষ সমস্যা
  • বিবাহিত পুরুষদের যৌন শিথিলতা
  • অতিরিক্ত শুক্রক্ষয় হেতু ধ্বজভঙ্গ
  • উত্তেজনা কালে লিঙ্গের শৈথিল্য
  • সহবাসকালে লিঙ্গ শক্ত হয় না
  • স্ত্রী সহবাসে পুরুপুরি অক্ষম

স্ত্রীরোগ সমূহের কার্যকর হোমিও চিকিৎসা

  • নারীদের ওভারিয়ান ক্যান্সার
  • জরায়ুর ইনফেকশন ও ক্যান্সার
  • নারীদের জরায়ুর এবং ওভারিয়ান সিস্ট
  • ফলিকুলার সিস্ট, করপাস লুটিয়াম সিস্ট
  • থেকা লুটেন, ডারময়েড, চকলেট সিস্ট
  • এন্ডোমেট্রোয়েড, হেমোরেজিক সিস্ট
  • পলিসিস্টিক ওভারি, সিস্ট এডিনোমা
  • সাদাস্রাব, প্রদর স্রাব, বন্ধ্যাত্ব
  • ফ্যালোপিয়ান টিউব ব্লক
  • জরায়ু নিচের দিকে নামা
  • নারীদের অনিয়মিত মাসিক
  • ব্রেস্ট টিউমার, ব্রেস্ট ক্যান্সার